মঙ্গলবার, ১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭

ডিমগুলো

মুরগী দ্রুত বাড়ি ফিরছে। বাতাস শুরু হয়েছে, ঝড় উঠবে যে কোন সময়ে। সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসছে। হঠাত পথে বনের রাজা বাঘের সাথে দেখা। বাঘ বলল, 'তুমি কোথা থেকে ফিরলে?'

মুরগী বলল, 'রাজা মশাই আমাদের মুরগীদের একটা অনুষ্ঠান ছিল, সেখানেই গিয়েছিলাম।'

বাঘ বলল, 'তুমি  পরিবার থেকে তাহলে অনেক সময় থেকেই আলাদা! তোমাকে আমি চিনি। তোমার বেড়ে উঠা বাচ্চাদের ফেলে যাওয়া উচিত হয়নি।'

 মুরগী বিনয়ের সাথে বলল, 'আমার ডিমগুল এখনো ফুটিনি।'

বাঘ গম্ভীর হয়ে বলল, 'ডিমগুলর ভিতর ওরা বেড়ে উঠছে, মাকে ওরা সব সময় এখন কাছে চাইবে। এমন কি খোসা ছেড়ে বের হয়ে কিছুটা বড় হওয়া পর্যন্ত ওরা তোমাকে কাছে চাইবে। তাই না? আর ফেলে গেলে ভয় তো সেখানেই। যাও দ্রুত যাও, ঝড় হবেই বলে মনে হচ্ছে।'

মুরগী দ্রুত ছুটতে লাগল। আসলেই অনেক দূরে তার বাড়ি। ইচ্ছা করলেই অনুষ্ঠান এড়ানো যেত। তবে সবার সাথে অনেক দিন পরে দেখা হবে আর খুব ইচ্ছে করছিল বলেই গিয়েছিল।

মুরগী বাড়ির কাছে এসে তো অবাক, একটা ডিমও নেই! নেই মানে নেই। আশে পাশে কোথাও নেই! আঁতকে উঠল। বিকালের আগে বের হয়েছিল। এই নিম গাছের নীচের এই কোনায় ডিমগুলো ছিল। তা দিচ্ছে সে বেশ কিছু দিন হল। বাচ্চারা ডিমের মধ্যে বড় হচ্ছিল। তার কেবলই মনে হচ্ছিল, যে কোন দিন বাচ্চাগুলো ডিমের খোসা ভেঙ্গে বের হয়ে 'মা মা' বলে ডেকে উঠবে।

মুরগী এখানে গেল সেখানে গেল। উহু কোথাও ডিমগুল নেই! মুরগী ডানে দৌড়াল, বামে গেল, দূরে আরো দূরে গেল। কিন্তু  কোথাও ডিমগুলো নেই! তবে কি সব ডিম ফুটে ওরা বাইরে বের হয়ে গেছে? হতে পারে? হতে পারে না? হতেই পারে। মুরগী নিজেকে নিজেই বলতে লাগল। আর সারা বন খুজতে লাগল। কিন্তু তা হলে তো ডিমের খোসা থাকবে। থাকবে না? ঠিক  তখনই মন্দ কথাটা মনে হল তার। কেউ কি সব ডিম খেয়ে ফেলেছে, গিলে খেয়েছে নাকি চুরি করে নিয়ে গেছে? সেটাও তো হতে পারে! হতে পারে না? মুরগী প্রচণ্ড চমকে উঠল!

মুরগী ছুটছে জোরাল বাতাসে ঝড়ের গতিতে। সন্ধ্যার আঁধার ঝুপ করেই নামল। অন্ধকার হয়ে এল, সেই অন্ধকারে মুরগী ডিমগুলো খুজছে। এমন সময় বিদুত চমকালো। মুরগী দেখল অনেকগুলো ডিম কাছেই পড়ে আছে। বিদ্যুতের চমক মুছে যেতেই অন্ধকার আবার নেমে এল। কিন্তু মুরগী মনে আছে ঠিক কোন জায়গায় সে ডিমগুলো দেখেছে। সে ছুটে এসে সেই জায়গায় অন্ধকারেই ডিমের স্পর্শ পেল। যেন নতুন জীবন পেয়েছে! আনন্দে আত্মহারা হয়ে সে ডিমে তা দিতে শুরু করল, ভুলে গেল বাতাসের গতি বাড়ছে। এক সময় মুরগী ঘুমিয়ে গেল।

ঘুম ভাঙ্গল তার শরীরের ডান দিকে ব্যাথা অনুভব করে। চোখ মিলতেই দেখল ভোর হয়ে গেছে। যেখানে ব্যাথা আরো তীব্র ব্যাথা শুরু হল, ব্যাথাটা ছড়িয়ে যাচ্ছে যে। ছড়িয়ে যাচ্ছে শরীরের  পাশে, সামনে পিছনে। আর তখনই সে চোখ বড় বড় করে যা দেখার দেখল। দেখল ডিমগুলো একটা একটা করে ফুটছে আর বের হচ্ছে সাপের বাচ্চা। আর কিছু ডিম থেকে বের হয়ে সাপের বাচ্চারা একের পর এক, আর তারা তাকে কামড়াছে! সেই ব্যাথা সহ্য সীমার বাইরে চলে যাচ্ছে। সে বুঝতে পারল যে, আসলে গত বিকালে তার ডিমগুলো কেউ খেয়ে ফেলেছে বা মুখে করে নিয়ে  গেছে। তাই সে ডিমগুলো খুজে পায়নি। সে সারা বনে ডিম খুজতে খুজতে যে ডিমগুলো পেয়েছিল তা আসলে তার নিজের ডিমগুলো না, এগুলো সাপের ডিম ছিল। সে নিজের ডিম মনে করে সাপের ডিম তা দিচ্ছিল সারা রাত। আর সকাল হতেই সেই ডিম ফুটে সাপের বাচ্চাগুলো বেড়িয়ে আসছে!

ব্যাথায় মুরগীর চোখ বন্ধ হয়ে আসছে। সে বুঝতে পারছে কি ঘটতে চলেছে। একের পর এক সাপের বাচ্চারা কামড়ে দিচ্ছে তাকে। এর মধ্যেও তার বাঘের কথাটি মনে হল। বাঘ বলেছিল, তোমার বাচ্চাদের ফেলে যাওয়া উচিত হয়নি।''

( কিভাবে একজন সন্তান পৃথিবীকে দেখে তা মূলত নির্ভর করে মা কতটা যত্ন নিয়ে বড় করেছে তাকে। সন্তানের কাছাকাছি থাকা, তাকে আদর, শাসনে রাখা, তাকে যত্ন নিয়ে শিখানোর ফলেই সে হারিয়ে যায় না, মুছে যায় না। মা যা পেয়েছে আর যা পায়নি, যা জেনেছে আর যা জানার চেষ্টা করেছে তার অভিজ্ঞতা দিয়ে মা তার সন্তান্দের সাজায়। ফলে সন্তান বড় হয় সাহস আর আত্মবিশ্বাস নিয়ে। আর এর অভাব হলেই সন্তান বিপদে পড়ে, বিপদে পড়ার ঝুঁকি থাকে সন্তানের বা সেই সন্তানেরা হারিয়ে যায়, খেয়ে ফেলে কেউ তাদের বা তাদের মন মনন, যে মায়েরা অসচেতন। ) 



Egg 

Chicken quickly going home. The wind has begun, the storm will come at any time. Approaching evening. Suddenly meet the king of the jungle tiger. Tiger said, "Where do you came from?"

Chicken and said, "Mister King in a ceremony was, went there."

Tiger said, "Oh! your family miss you from a lot of time! Yes,I know you. You should not left your children "

 Chicken politely said, "The baby did not come out from the eggs."

Tiger became serious and said, "They are growing up inside egg and they need mother, they ask all the time now. Until they grow up, they ask you. Is not it? And the fear is out there. Go to the quick, the storm seems to come. "

Chicken run fast. But the surprise came near the house, there is no eggs. Was horrified. Before the evening was out. This was the bottom corner of the eggs of the neem tree. But where? where all! She just seemed to break out of the shell of the egg a day and baby will call her ‘’mama mama’’.

Here, there was the chicken. There is no egg oh! Chicken, ran to the right, went left, went farther away. But there is no egg! However, the eggs hatch, they are out? may be? Impossible? could be? Chicken talk herself. I was looking around the forest. But it will be the shell of the egg. Just when it seemed wrong to her. No one ate the eggs, swallowed or stole? That may be? Impossible? Chicken was a great surprise.

Chicken has gone strong wind storm. Come down after dark in the evening. Went dark, the darkness, looking for chicken eggs. There was electricity in the air, and voices and saw a lot of chicken eggs has fallen. Remove bolt of lightning came down again go dark. There's just no place like chicken eggs, but she saw. He ran the place was in darkness, touching the egg. She has a new life! She began to sit with exceeding great joy, forgot the wind speed increases. Chicken slept at one time.

Chicken wake up feeling pain in the right side of his body. More severe pain where the pain started. Going to the next, back and forth. She saw egg are broken and there is no baby chicken, there are baby snake. When boiling eggs, one at a time, and there's a baby snake and snake are bite her. So pain she feel. Lot of snake come out from egg one by one. The pain is far out of range. She realized that, actually  last night that egg was not her own eggs. it was a snake eggs. She thinks it was own eggs.
Chicken has been turning a blind eye pain. She understands what is going to happen. One after another, giving her a snake bite.

She feel pain and remeber  word of a tiger. Tiger said, should not have left your children. ''